পানামা পেপারস নিয়ে অনুসন্ধানে দুদক

নিজস্ব প্রতিবেদক: নিউইয়র্কভিত্তিক অনুসন্ধানী প্রতিবেদনমূলক প্রতিষ্ঠান ইন্টারন্যাশনাল কনসোর্টিয়াম অব ইনভেস্টিগেটিভ জার্নালিস্টস’র (আইসিইজে) অর্থপাচারের তালিকায় বাংলাদেশিদের জড়িত থাকা না থাকার বিষয়টি অনুসন্ধানে একটি টিম করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। বৃহস্পতিবার দুপুরে দুদকের উপপরিচালক আখতার হামিদের নেতৃত্বে তিন সদস্যের একটি টিম গঠন করা হয়েছে। তথ্যটি নিশ্চিত করেছেন দুদকের মানিলন্ডারিং শাখার মহাপরিচালক ফরিদ আহমেদ ভূঁঞা।সম্প্রতি পানামাভিত্তিক আইন প্রতিষ্ঠান মোসাক ফোনসেকোর ফাঁস হওয়া অভ্যন্তরীণ পৌনে তিন টেরাবাইট নথি প্রকাশ করতে শুরু করেছে আইসিআইজে।এতে বাংলাদেশেরও বেশ কয়েকজন ব্যবসায়ীর নাম রয়েছে। তবে তারা কী পরিমাণ অর্থ পাচার করেছেন সে ব্যাপারে বিস্তারিত তথ্য এখনো প্রকাশ করা হয়নি। আজ আইসিইজের রিপোর্টটি আমলে নিয়ে কমিটি করলো দুদক।

প্রসঙ্গত, এই তালিকায় রয়েছেন মিশরের সাবেক প্রেসিডেন্ট হোসনি মোবারক, লিবিয়ার সাবেক রাষ্ট্রপ্রধান মুয়াম্মার আল গাদ্দাফি এবং সিরিয়ার প্রেসিডেন্ট বাশার আল আসাদ। এছাড়া এক ব্যাংকের মাধ্যমে অন্তত প্রায় দুই বিলিয়ন ডলার অর্থ পাচারের সঙ্গে রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের ঘনিষ্ঠ সহযোগীও রয়েছেন। বলিউডের তারকা অমিতাভ বচ্চন এবং ঐশ্বরিয়া রায়ের নামও রয়েছে তালিকায়। এছাড়া আছেন তারকা ফুটবলার লিওনেল মেসি।ফাঁস হওয়া নথিগুলোর মাধ্যমে পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফ, ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট পেত্রো পোরোশেনকো, ইরাকের সাবেক অন্তর্বর্তীকালীন প্রধানমন্ত্রী আয়াদ আলাওয়ি, মিশরের ক্ষমতাচ্যুত স্বৈরশাসক হোসনি মোবারকের ছেলে আলা মুরাবক এবং আইসল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী সিগমান্ডার গানলা উগসন রয়েছেন। আর চীনের ক্ষমতাসীন দলের সাবেক-বর্তমান অন্তত ৮ জনের অবৈধ অথবা গোপন সম্পদ থাকার তথ্যও পাওয়া গেছে। নথিতে রয়েছে ব্রিটিশ রক্ষণশীল এমপি, রাজনীতিবিদের গোপন সম্পদের কথাও।

এছাড়াও বাংলাদেশিদের মধ্যে রয়েছেন, ম্যাগনিফিশেন্ট ম্যাগনিচুড ইনকরপোরেশনের পরিচালক ও শেয়ারহোল্ডার এএসএম মহিউদ্দিন মোনেম, এই কোম্পানির আরেক পরিচালক আসমা মোমেন,  টাইটান অ্যালায়েন্স লিমিটেডের পরিচালক এবং প্রমিনেন্ট কনটেইনার লাইনস প্রাইভেট লিমিটেডের পরিচালক ও শেয়ারহোল্ডরি এএফএম রহমাতুল বারি, রাইটস্টার প্রাইভেট লিমিটেডের পরিচালক ও শেয়ারহোল্ডার আজমত মঈন ও বাংলা ট্রাক ওভারসিজ লিমিটেডের পরিচালক ও শেয়ারহোল্ডার, বিবিটিএল এবং স্ট্রস ইউনিভার্সাল লিমিটেডের এর প্রধান ক্লায়েন্ট (মাস্টার ক্লায়েন্ট)।আরও আছেন সভেরিন ক্যাপিটাল প্রাইভেট লিমিটেডের পরিচালক ও শেয়ারহোল্ডার ক্যাপ্টেন এমএ জাউল, রাইটস্টার প্রাইভেট লিমিটেডের পরিচালক ও শেয়ারহোল্ডার দিলিপ কুমার মোদি, স্প্রিং শোর ইনকরপোরেটেড এর পরিচালক এফএম জুবাইদুল হক, একই কোম্পানির শেয়ারহোল্ডার এফএম জুবাইদুল হক এবং সালমা হক, বেকিংসডেল লিমিটেড, গ্রাটানভাইল লিমিটেড এবং বর্নিও পাওয়ার্স লিমিটেডের মালিক জাফের উমিদ খান এবং এল্ডার স্টার লিমিটেডের পরিচালক ও শেয়ারহোল্ডার কাজী রায়হান জাফর।

আছেন, রাইটস্টার প্রাইভেট লিমিটেড এবং স্ট্রস ইউনিভার্সাল লিমিটেডের পরিচালক ও শেয়ারহোল্ডার খাজা শাহাদাত উল্লাহ, তালাভেরা ওয়ার্ল্ডওয়াইড ইনকরপোরেশনের পরিচালক মাহতাব উদ্দিন চৌধুরী, দ্য কন্ট্রাক্ট অ্যান্ড সার্ভিসেস লিমিটেডের পরিচালক মির্জা এম ইয়াহিয়া, পিরামিড রক লিমিটেডের পরিচালক ও শেয়ারহোল্ডার মোহাম্মদ আমিনুল হক, লাকি ড্রাগন ম্যানেজমেন্ট ইনকরপোরেশনের পরিচালক মোহাম্মদ জাহিদুল ইসলাম, রাইটস্টার প্রাইভেট লিমিটেড এবং স্ট্রস ইউনিভার্সাল লিমিটেডের পরিচালক ও শেয়ারহোল্ডার মোহাম্মদ শাহেদ মাসুদ, গ্রাটানভাইল লিমিটেডের মালিক মোহাম্মদ ফয়সাল করিম খান, এন্ডারলাইট লিমিটেডের পরিচালক ও শেয়ারহোল্ডার নজরুল ইসলাম, পিরামিড রক লিমিটেডের পরিচালক ও শেয়ারহোল্ডার নাজিম আসাদুল হক এবং এল্ডার স্টার লিমিটেডের পরিচালক নিলুফার জাফরুল্লাহ।এছাড়াও আছেন স্প্রিংশোর ইনকরপোরেটেডের পরিচালক সালমা হক, সভেরিন ক্যাপিটাল প্রাইভেট লিমিটেডের পরিচালক ও শেয়ারহোল্ডার সৈয়দ সিরাজুল হক, দ্য কন্ট্রাক্ট অ্যান্ড সার্ভিসেস লিমিটেডের পরিচালক সাইয়েদা সামিনা মির্জা, পিরামিড রক লিমিটেডের পরিচালক ও শেয়ারহোল্ডার তারিক ইকরামুল হক, তালাভেরা ওয়ার্ল্ডওয়াইড ইনকরপোরেশনের পরিচালক উম্মে রুবানা, হ্যান্সঅ্যাটিক লিমিটেড এবং পাথফাইন্ডার ফিন্যান্স লিমিটেডের পরিচালক জাফরুল্লাহ কাজী, একই কোম্পানির পরিচালক ও শেয়ারহোল্ডার জাফরুল্লাহ নিলুফার এবং কম্পাস ডি বাংলা লিমিটেডের পরিচালক ও শেয়ারহোল্ডার জুলফিকার হায়দার।