তিতাস গ্যাসে চার বছরে তিন হাজার কোটি টাকার অধিক অনিয়ম

নিজস্ব প্রতিবেদক: বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রণালয়ের অধীন তিতাস গ্যাস ট্রান্সমিশন অ্যান্ড ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানিতে গত চার বছরে তিন হাজার কোটি টাকারও বেশি অনিয়ম হয়েছে। ২০১০-১১ অর্থবছর থেকে ২০১৪-১৫ অর্থবছর পর্যন্ত সময়ে এই অনিয়ম হয়। জাতীয় সংসদ ভবনে মঙ্গলবার অনুষ্ঠিত সরকারি প্রতিষ্ঠান সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির বৈঠকে এ তথ্য তুলে ধরা হয়। সংস্থাটির পক্ষ থেকে জানানো হয়, এই চার বছরে কোম্পানির অডিট আপত্তির সংখ্যা ২৩৩টি। যাতে জড়িত অর্থের পরিমাণ ৩ হাজার ১৩৮ কোটি ৩৮ লাখ টাকা। এর মধ্যে ২১টি আপত্তি নিষ্পত্তি করা হয়েছে। কমিটি অতিদ্রুত দায়ীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের তাগিদ দিয়েছে। কমিটির সভাপতি শওকত আলীর সভাপতিত্বে বৈঠকে কমিটির সদস্য মুহিবুর রহমান মানিক ও আব্দুর রউফ অংশ নেন। সংসদ সচিবালয় জানায়, বৈঠকে বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রণালয়ের অধীন তিতাস গ্যাস ট্রান্সমিশন অ্যান্ড ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানির সার্বিক কার্যক্রম এবং কোম্পানির বিগত পাঁচ বছরের অডিট আপত্তি সম্পর্কে আলোচনা হয়। এসময় সংস্থাটির পক্ষ থেকে জানানো হয়, গত বছরের ৩০ জুন পর্যন্ত ১২ হাজার ৮৮৯ কিলোমিটার পাইপ লাইনের মাধ্যমে ১৮ লাখ ৯৭ হাজার ৩১৭ জন গ্রাহককে সেবা দিয়েছে তিতাস। অবৈধ গ্যাস বিতরণ লাইন উচ্ছেদের অংশ হিসেবে বিভিন্ন এলাকায় নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের উপস্থিতিতে গত ডিসেম্বর পর্যন্ত ১৯৯টি অভিযানের মাধ্যমে প্রায় ৩১৬ কিলোমিটার পাইপ লাইনের সংযোগ বিচ্ছিন্ন করা হয়েছে। কমিটি অবৈধ গ্যাস সংযোগ প্রদানে জড়িত অসাধু কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়ার সুপারিশ করেছে। এছাড়া ম্যাজিস্ট্রেট নিয়োগের মাধ্যমে অবৈধ গ্রাহক সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে ক্রমবর্ধমান সিস্টেম লস কমিয়ে আনার সুপারিশ করা হয়েছে। বৈঠকে নতুন করে প্রাপ্ত বিপুল আয়তনের সমুদ্রসীমায় তেল-গ্যাস অনুসন্ধান করে অব্যাহত চাহিদা পূরণ করার উপর গুরুত্বারোপ করে কমিটি।