‘পদ্মা সেতু নিয়ে ষড়যন্ত্রকারীদের প্রচলিত আইনে বিচার হবে’

গ্রীণনিউজ ডেস্ক : পদ্মা সেতু প্রকল্প নিয়ে ষড়যন্ত্রকারীদের প্রচলিত আইন ও নিয়ম মেনেই বিচার করা হবে বলে সংসদকে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

বুধবার বিকেলে দশম জাতীয় সংসদের নবম অধিবেশনে বিরোধী দল জাতীয় পার্টি (ঢাকা-৬) আসনের সদস্য কাজী ফিরোজ রশীদের প্রশ্নের জবাবে প্রধানমন্ত্রী এ কথা বলেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, দুর্নীতি দমন কমিশনের তদন্তে পদ্মা সেতু প্রকল্পের বিরুদ্ধে আনীত কথিত দুর্নীতির অভিযোগ ভিত্তিহীন প্রমাণিত হয়েছে। সে সময়ে পদ্মা সেতু প্রকল্প বাস্তবায়নে বাধা দিতে যারা ষড়যন্ত্র করেছে, তাদের বিষয়ে দুর্নীতি দমন কমিশন তদন্ত করেছে।

বাংলাদেশ সরকারের নিজস্ব অর্থায়নে পদ্মা সেতুতে ৩০ ইঞ্চি ব্যাসের গ্যাস সঞ্চালন পাইপাইল নির্মাণের পরিকল্পনা আছে বলেও সংসদকে জানান প্রধানমন্ত্রী।

তিনি বলেন, দেশের দক্ষিণ ও দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলে গ্যাস সরবরাহের জন্য পায়রা বন্দরে একটি ল্যান্ড বেসড এলএনজি টার্মিনাল নির্মাণের পরিকল্পনা সরকার গ্রহণ করেছে।

ফিরোজপুর-৩ আসনের স্বতন্ত্র সদস্য রুস্তম আলী ফরাজীর প্রশ্নের জবাবে প্রধানমন্ত্রী জানান, পদ্মা সেতু প্রকল্পের বিভিন্ন প্যাকেজের নির্মাণকাজ তদারকির জন্য পরামর্শক প্রতিষ্ঠান নিয়োগ প্রক্রিয়ায় দুর্নীতি ষড়যন্ত্রের অভিযোগ এনে বিশ্বব্যাংক ঋণচুক্তি স্থগিত করে। কিন্তু দুর্নীতি দমন কমিশনের তদন্তে বিশ্বব্যাংকের সে অভিযোগ ভিত্তিহীন প্রমাণিত হয়।

এক পর্যায়ে বিশ্বব্যাংক এ প্রকল্পে পুনরায় ফিরে আসার ঘোষণা দিলেও নতুন নতুন শর্ত আরোপ করে দীর্ঘসূত্রতার পথ অবলম্বন করায় তাদের ঋণ গ্রহণ করা হয়নি।

এদিকে সুনামগঞ্জ-৪ আসনের সংসদ সদস্য পীর ফজলুর রহমানের প্রশ্নের জবাবে প্রধানমন্ত্রী বলেন, জনগণের সার্বিক নিরাপত্তাসহ স্বাভাবিক আইনশৃংখলা পরিস্থিতি বজায় রাখার লক্ষ্যে পুলিশ নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে।

প্রধানমন্ত্রী আরো জানান, পুলিশ বাহিনীর সদস্যদের বিরুদ্ধে প্রতিটি অভিযোগ যথাযথভাবে তদন্ত করে অভিযোগের গুরুত্ব অনুযায়ী চাকরি থেকে বরখাস্তসহ প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়ে থাকে।